ফুটবল নক্ষত্রদের বিদায়ের একটি বছর

76
barta-legend

আইরিশ ব্যান্ড “দা স্ক্রিপ্ট” এর একটি বেশ জনপ্রিয় গান আছে, “হল অফ ফেম”। গানগুলোর কিছু লাইন আছে, আপনি সেই লাইনগুলোকে অনুপ্রেরনা বলুন কিংবা আর যাই হোক না কেনো। কিন্তু যাদের নিয়ে কথা বলবো যদি বলা হয় গানের বাস্তব  উদাহরন,তাহলে তারা সেই ব্যাক্তি। গানের লাইনগুলোর মতোই এই ছিলো গ্রেট, এরা নিজেদের চেষ্টা একাগ্রতা আর ধৈর্য দিয়ে জয় করেছেন লাখো ভক্তদের মন, আর জায়গা করে নিয়েছেন হল অফ ফেমে।

 ২০১৭ সাল ফুটবলের জন্য আরেকটি অসাধারন বছর ছিলো, অজস্র রেকর্ড, অজস্র গোল আর সেই সাথে বছরটা ছিলো বিচ্ছেদেরও, ফুটবলের হল অফ ফেমে স্থান পাওয়া সেই ফুটবলাররে বিদায় বলেছেন ফুটবলকে, আর কখনো ফুটবল মাঠে দেখা যাবে না তাদের মাঠ মাতাতে, ২০১৭ সালে বিদায় নিয়েছে এমনই ৬ জন কিংবদন্তী।

barta-philipp-lahm

১. ফিলিপ লাম- জার্মানি:

জার্মানি এবং বায়ার্ন মিউনিখের কিংবদন্তী ফিলিপ লাম সবাইকে অবাক করে মাত্র ৩৩ বছর বয়সে ফুটবল থেকে অবসরের ঘোষণা দিয়েছেন। সে তার বক্তব্যে বলেন “তার এখন বিশ্রামের প্রয়োজন এবং তিনি সামনে দিন গুলোতে তার মান ঠিক রাখতে পারবেন না বলে মনে করেন। তাই সে এই সিজন শেষে তার ফুটবল ক্যারিয়ার থেকে বিদায় নিবেন বলে জানান।

এই ৩৩ বছর বয়সী লেফট ব্যাক ডিফেন্ডার ২০০২ সালে বায়ার্ন মিউনিক যোগদেন। প্রায় ১৫টি বছর অতিবাহিত করেন এই ক্লাবটির সাথে এবং এই বছরগুলোতে ক্লাব এবং জাতীয় দলের হয়ে ৭ বুন্ডেসলিগা টাইটেলস, ৬ ডিএফবি- পোকালস কাপ, ১টি  উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লীগ, ১টি ফিফা ক্লাব বিশ্বকাপ এবং একটি ফিফা বিশ্বকাপ ট্রফি হাতে তুলেন। ৬৫২ ম্যাচে তিনি গোল করেছেন ২২ টি

barta-Frank-Lampard

২.ফ্রাঙ্ক ল্যাম্পার্ড-ইংল্যান্ড:

ইংল্যান্ড এবং চেলসির আর এক জন কিংবদন্তি হলেন ফ্রাঙ্ক ল্যাম্পার্ড, তিনি চেলসির সর্বকালের সেরা গোল স্কোরার। তার প্রজন্মের ক্লাব ইতিহাসের সেরা মিডফিল্ডারদের মধ্যে অন্যতম সেরা খেলোয়াড় হিসেবে ল্যাম্পার্ডের নাম উল্লেখ থাকবে সবসময়। গত ফেব্রুয়ারি মাসে, এই প্রিমিয়ার লীগের কিংবদন্তী যথেষ্ট ভেবে নিয়েছেন সিদ্ধান্ত নিয়েছে এবং তার ভালোর জন্য বিদায় বলেছেন ফুটবল মাঠকে।

ল্যাম্পার্ড বলেন ” অবিশ্বাস্য  ২১ বছর  পার করার পর আমি সিন্ধান্ত নিয়েছি এখনই সঠিক সময় পেশাদার ফুটবলার থেকে নিজের ক্যারিয়ার শেষ করা। আমার হৃদয়ের  বৃহত্তম অংশ জুড়ে রয়েছে চেলসি, একটি ক্লাব যা আমাকে দিয়েছে অসাধারণ কিছু মুহূর্ত। তারা যে সুযোগ দিয়েছে আমাকে এত কিছু অর্জন করার পিছনে তা আমি কখনোই ভুলতে পারবো না।”

তিনি ১৩ বছর ধরে ব্লুজদের প্রতিনিধিত্ব করেন যার মধ্যে তিনি ৩  প্রিমিয়ার  লীগ  টাইটেল, ৪  এফএ কাপ শিরোনাম, ২  লীগ কাপ, ১  চ্যাম্পিয়ন্স  লীগ, ১ ইউরোপ লীগ ক্রাউন ট্রফি হাতে নেন। এই মিড ফিল্ডারটি ক্লাব ও জাতীয় দলের হয়ে ৯১৩ ম্যাচে ২৭৪ টি গোল করেন।

barta-kaka

 

৩.কাকা – ব্রাজিল:

প্রাক্তন এসি মিলান এবং রিয়াল মাদ্রিদ তারকা কাকা তার শেষ ক্লাব অরল্যান্ডো সিটিকে বিদায় বলেছেন এই বছরের মাঝামাঝি সময়ে। সবার মত ফুটবলকে চিরদিনের জন্য বিদায় বলছেন ২০০৭ সালে ব্যালন ডি’অর জয়ী এই তারকা। কাকা বলেন “আপনারা জানেন এই বছরে আমার চুক্তি শেষ হচ্ছে অরল্যান্ডো সিটির সাথে কিন্তু আমি আর নতুন চুক্তি নবায়ন করে চাচ্ছি না।“ কাকা তার ফুটবল ক্যারিয়ার এর ২০০২ এবং ২০০৯ সালে কনফেডারেশন্স  কাপ ও ২০০২ সালে বিশ্বকাপ জয় করেন। এছাড়া তিনি এসি মিলানের হয়ে একটি চ্যাম্পিয়ন্স  লীগ এবং রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে লা লীগ ও কোপা ডেল রে ট্রফি জিতেন। সর্বশেষে তিনি তার হাজারো ভক্তদের কাঁদিয়ে ২০১৭ এর অক্টোবর মাসে বিদায় জানান ফুটবলকে।

barta-xabi alonso

৪.জাবি আলোনসো- স্পেন:

স্পেনের কিংবদন্তি জাবি অ্যালোনসো গত বছরের মে মাসে অবসর গ্রহণের ঘোষণা দিয়েছেন, তিনি লিভারপুল, রিয়াল মাদ্রিদ এবং সর্বশেষ বায়ার্ন মিউনিখের হয়ে খেলেছিলেন। জাবি আলোনসো বলেন “আমি আমার কর্মজীবন সর্বোচ্চ স্তরে শেষ করতে চেয়েছিলাম এবং বায়ার্ন সর্বোচ্চ স্তর। রিয়াল সোসিয়েদাদ, লিভারপুল, রিয়াল মাদ্রিদ এবং বায়ার্ন মিউনিখের মতো খেলোয়াড় হিসেবে আমি অনেক বেশি অভিজ্ঞতা অর্জন করেছি। আমি কখনোই ভাবিনি যে আমি এইরকম একটি দুর্দান্ত ক্যারিয়ার পাবো ফুটবল দুনিয়াতে।”

এই দুর্দান্ত মিডফিল্ডারটি লস ব্লাঙ্কসদের হয়ে লা লিগা এবং চ্যাম্পিয়নস লীগ, লিভারপুলের হয়ে এফ এ কাপ এবং চ্যাম্পিয়ন্স লীগ এবং বায়ার্ন এর হয়ে বুন্দেসলিগা ও জার্মান কাপ জয় লাভ করেছেন। এছাড়া জাতীয় দলের হয়ে ২০০৮ ও ২০১২ সালে  ইউরোপীয় কাপ এবং ২০১০ সালে বিশকাপে বিজয় লাভ করেন।  স্প্যানিশ এই কিংবদন্তি ৭০১ ম্যাচে ৪৪ টি গোল করেন।

barta-totti

৫.ফ্রান্সিসকো টট্টি – ইতালি:

ইতালি এবং রোমা কিংবদন্তি ফ্রান্সেসকো টট্টি এই বছরের জুলাই মাসে অবসরের ঘোষণা দেন। ফ্রান্সিসকো টট্টি বলেন- “একটি ফুটবল খেলোয়াড় হিসেবে আমার জীবনের প্রথম অংশটি শেষ হয়ে গেছে এবং এখন আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ জীবন শুরু হচ্ছে আমার। ২8 শে মে পর্যন্ত আমি কেবল ফুটবল খেলা সম্পর্কে চিন্তা করি কিন্তু এখন আমি সামনের দিকে ধাবিত হতে চাচ্ছি এবং নতুন একটি পাতা খুলতে যাচ্ছি ”। ৪১ বছর বয়সী কিংবন্তটি ২০০০/০১ সিজনের সিরিয়া এ টাইটেল, ২ কোপ্পা ইতালিয়া কাপ, ২ সুপার কোপ্পা ইতালিয়া এবং ২০০৬ সালে বিশ্বকাপ জয় করেন। তিনি তার ২৫ বছর ক্যারিয়ার এর ৭৮৬ ম্যাচ এর মধ্যে ৩০৭টি গোল করেন।

barta-pirlo

৬. আন্দ্রে ডেল পিরলো- ইতালি:

ইতালিয়ান ফুটবল কিংবদন্তি আন্দ্রে পিরলো আনুষ্ঠানিকভাবে ফুটবল খেলা থেকে অবসর গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তিনি নিউ ইয়র্ক সিটি এফসির হয়ে তার  ক্যারিয়ারের সর্বশেষ ম্যাচটি খেলেন। আন্দ্রে ডেল পিরলো বলেন -“শুধু নিউ ইয়র্ক এসে আমার যাত্রা শেষ হয়নি বরং ফুটবল প্লেয়ার হিসেবেও আমার যাত্রা শেষ হয়ে গিয়েছে”। ইন্টার মিলান, এসি মিলান, এবং জুভেন্টাসে যোগদানের পূর্বে তিনি ব্রসিসিয়াতে তার ক্যারিয়ার শুরু করেন। তিনি ২ বছর আগে মেজর লীগ সকারে যোগদান করেছিলেন। ২০০৩ থেকে ২০১১ সালের মধ্যে ২ টি চ্যাম্পিয়নস লিগের মুকুট এবং একটি ক্লাব বিশ্বকাপের খেতাব অর্জন করেন তিনি এবং ২০০৬ সালে বিশ্বকাপ জয় লাভ করেন।

আপনার কাছে কেমন লেগেছে এই ফিচারটি?

Like
Like Love Haha Wow Sad Angry
2

পাঠক মতামতঃ